elektronik sigara

রমাযান ২০২২ এর ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করুন

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

নফল নামায

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসা:

(ক) পাক অবস্থায় নফল নামায যত ইচ্ছা পড়া যাবে কি-না?

(খ) তাহাজ্জুদ, ইশরাক, চাশত ও সালাতুত তাসবীহ নফল না, সুন্নাতের নিয়তে পড়তে হয়?

(গ) বিতরের নামায পড়ে শুয়ে গেলে ভোর রাতে তাহাজ্জুদ পড়া যাবে কি-না?


জবাব:


(ক) হ্যাঁ, মাকরূহ ওয়াক্ত না হলে নামায যত ইচ্ছা পড়া যায়। (প্রমাণ: ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১:৪০ # বেহেশতী যেওর ২:২৯)


তবে সারা দিনে কখন কত রাকা‘আত নফল, কিভাবে পড়তে হবে তা কোন হক্কানী আলেম বা মুফতী সাহেব-এর নিকট থেকে ভালোভাবে জেনে নিন।


(খ) তাহাজ্জুদ, ইশরাক ও সালাতুত তাসবীহ শুধু উক্ত নামাযের নিয়তে পড়লেই হয়ে যাবে। যেমন- বলতে হবে দুই রাকা‘আত ইশরাক পড়েছি। সুন্নাত বা নফল বলার প্রয়োজন নেই। একান্ত বলতে হলে, যে কোনটাই বলতে পারেন। কারণ, উক্ত নামায সুন্নাতে গাইরে মু’আক্কাদাহ। যাকে নফলও বলা যায়। (প্রমাণ: আহসানুল ফাতাওয়া ৩:৪৫৫)


(গ) তাহাজ্জুদের অর্থ হল রাত্রে ঘুম থেকে উঠে নামায পড়া। তবে উত্তম হল শেষ রাত্রে আট রাকা‘আত বা বার রাকা‘আত নফল নামায পড়া এবং সুবহে সাদিকের পূর্বে শেষ করা। যদি কেউ বিতরের নামায পড়ে শুয়ে পড়ে এবং শেষ রাত্রে তাহাজ্জুদ পড়ে, এতে কোন অসুবিধা নেই। বস্তুতঃ যারা নিয়মিত উঠতে পারে, শেষ রাত্রে উঠতে কোন অসুবিধা হয় না, তাদের জন্য তাহাজ্জুদের পরে বিতর পড়া ভালো, জরুরী নয়। (প্রমাণঃ হিদায়া ১:৮৪ # বেহেশতী যেওর ২:৩০)