elektronik sigara

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১শে জুমাদাল উলা, ১৪৪৪ হিজরী, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার (সকাল ৭-৮টা থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

তাহাজ্জুদ নামায জামাআতে পড়া

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

তাহাজ্জুদ নামায জামা‘আতে পড়া যায় কি-না?


জবাবঃ


যে সব নামায জামা‘আত বন্দী হয়ে পড়ার কথা শরী‘আতে বলেছে, তা জামা‘আতের সাথে পড়া চাই। আর যে সমস্ত নামায একাকী পড়ার কথা বলা হয়েছে, সেগুলো একাকী পড়াই পরিপূর্ণ সাওয়াব প্রাপ্তির উপায় এবং আল্লাহ ও রাসূলের সন্তুষ্টি অর্জনের সরল পথ। হুজুর সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম এবং তাঁর সুযোগ্য সাহাবায়ে কিরাম রা., তাবিয়ীন তাবি’তাবিয়ীনগণ অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে তাহাজ্জুদের নামায পড়েছেন এবং আমাদের জন্য চিরস্থায়ী সুন্নাত হিসেবে তার গুরুত্ব বর্ননা করেছেন। তবে তাঁরা কখনোও জামা‘আত বন্ধী হয়ে তাহাজ্জুদ পড়েছেন এমন কোন প্রমাণ আমাদের জানা মতে নেই। সুতরাং জামা‘আতের সাথে তাহাজ্জুদ পড়া উচিত নয়। তাহাজ্জুদ নামায একাকী পড়াই সুন্নাত তরীকা। যদি ঘটনা ক্রমে দু’তিন জন একত্রিত হয়ে জামা‘আতের সাথে তাহাজ্জুদ পড়ে ফেলে তাহলে মাকরূহ হবে না। আর যদি ৪/৫ জন মিলে ডাকাডাকি না করে জামা‘আত করে, বা ডাকাডাকি করে ২/৪ জন মিলে জামা‘আত করে, তাহলে উক্ত জামা‘আত ফুকাহায়ে কিরামের মতে মাকরূহ হবে। (প্রমাণঃ মাবসূত ২:১৪৪ # আল বাহরুর রায়িক, ১:৬০৪ # আদদুররুল মুখতার ২:৪৮-৪৯ # বাদায়েউস সানায়ে, ১:২৮০ # রহীমিয়া ১:১৭৭ # রশীদীয়া ২৯৬)


يكره ذالك علي سبيل التداعي بان يقتدي اربعة بواحد كما في الدرر – (الدر المختار 2/48-49)