elektronik sigara

আগামী ইজতেমা ২০শে জুমাদাল উখরা, ১৪৪৪ হিজরী ‍মুতাবেক ১৩ই জানুয়ারী, ২০২৩ ঈসায়ী তারিখ শুক্রবার থেকে ২২শে জুমাদাল উখরা, ১৪৪৪ হিজরী মুতাবেক ১৫ই জানুয়ারী, ২০২৩ ঈসায়ী তারিখ রবিবার পর্যন্ত চলবে। অর্থাৎ ১৩,১৪,১৫ জানুয়ারী, ২০২৩। ইজতেমার ময়দানের ম্যাপ ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন

 

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৬শে জুমাদাল উখরা, ১৪৪৪ হিজরী, ২০ই জানুয়ারী, ২০২৩ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার (সকাল ৭-৮টা থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

কুরবানী ওয়াজিব হওয়ার শর্তাবলী ও চামড়ার হুকুম

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

কুরবানী কার উপর ওয়াজিব, কতটুকু মাল থাকলে কুরবানী করতে হবে? কুরবানীর চামড়া নিজে ব্যবহার করেত পারবে কি-না?

 


জবাবঃ


কুরবানী স্বাধীন মুকিম মুসলমান যার নিকট কুরবানীর দিনে ৭ ১/২ তোলা স্বর্ণ বা ৫২ ১/২ তোলা রৌপ্য বা এর সমমূল্যের নগদ অর্থ অথবা ব্যবসার মাল কিংবা প্রয়োজন অতিরিক্ত সামানপত্র থাকে, তার উপর কুরবানী ওয়াজিব হবে। চাই তা পূর্ণ এক বৎসর স্থায়ী থাকুক, বা না থাকুক। এক কথায় যে পরিমাণ সম্পদের অধিকারী হলে ঈদুল ফিতরের দিনে ফিতরা ওয়াজিব হয়, সেই পরিমাণ সম্পদ কুরবানীর দিনে (অর্থাৎ ১০/১১/১২ ই যিলহজ্জ) কারো নিকটে কিংবা দু’বৎসর বয়সের গরু বা মহিষের সাত ভাগের অন্ততঃ এক ভাগ অংশে শরীক হয়ে কুরবানী করা ওয়াজিব। তবে গরু-মহিষে একাধিক অংশ নিলে বা একাই একটা কুরবানী করলে, কোন ক্ষতি নেই বরং ভাল। আর কুরবানীর চামড়া পাকা করে নিজে ব্যবহার করা যায়, বা অন্যকে হাদিয়া দেয়া যায়। কিন্তু, বিক্রয় করলে তার মূল্য গরীব-মিসকীনদেরকে দান করা ওয়াজিব।


কোন খালিস দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের গরীব তালিবে ইলমকে দান করলে, দানের সাথে সাথে ঈলমে দ্বীনের সহায়তার সাওয়াব পাওয়া যাবে। [হিদায়াঃ ১:২৩২]