elektronik sigara

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১শে জুমাদাল উলা, ১৪৪৪ হিজরী, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার (সকাল ৭-৮টা থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

অশুদ্ধ পড়েন এমন ইমামের পিছনে শুদ্ধ পড়নেওয়ালার নামাযের হুকুম

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

যদি কোন মসজিদের ইমাম সাহেবের পড়া অশুদ্ধ হয় এবং তাকে বলার পরও কুরআন পড়া ঠিক না করেন এবং সহীহ্ পড়তে পারেন এমন কোন ব্যক্তিকেও নামায পড়াতে দেন না। কিন্তু যিনি সহীহ্ পড়তে পারেন, তিনি জানেন জামা‘আতে নামায পড়া ওয়াজিব। এই মুহূর্তে সহীহ্ পড়নেওয়ালা ব্যক্তি কি করবেন? জামা‘আতে, না একা একা পড়বেন?


জবাবঃ


কুরআন শরীফ ভুল পড়লে গুনাহ্ হবে। তবে সব ভুলের কারণে নামায ফাসিদ হয় না। কোন ইমামের পড়া এমন অশুদ্ধ হয় যে, তাতে অর্থ বিগড়িয়ে নামায নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে এমন ব্যক্তির জন্য ইমামতী জায়িয নেই। এবং তার পিছনে সহীহ্ পড়নেওয়ালা ব্যক্তির ইকতিদা করা জায়িয নেই। এ সুরতে ইকতিদা করলে সকলের নামায বাতিল হয়ে যাবে। আর যদি এমনি অশুদ্ধ হয় যে, তাতে গুনাহ্ হওয়া সত্বেও নামায নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশংকা কম- যেমন: মদ্দ্, গুন্নাহ্ ইত্যাদির ভুল, তাহলে সহীহ্ পড়নেওয়ালা তার পিছনে নামায না পড়ে অন্যত্র সহীহ্ পড়নেওয়ালা ইমামের পিছনে নামায পড়বে। তবে যদি অন্যত্র গেলে জামা’আত ছুটে যাওয়ার প্রবল আশংকা থাকে তাহলে এই ইমামের পিছনেই নামায পড়ে নিবে। এ ক্ষেত্রে সহীহ্ পড়নেওয়ালার ইকতিদার দরুন সকলের নামায ফাসিদ হবে না।  [প্রমাণঃ হিদায়াহ ১:১২৬ # ফাতাওয়ায়ে মাহমূদিয়া ৭:৩৯]