elektronik sigara

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেড়িয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

রোযার নিয়্যতের সময়সীমা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

মাসিক রাহমানী পয়গাম জানুয়ারী ৯৮ সংখ্যায় “রোযার মাসায়িল” শিরোনামে রামাযানের দিনে ১১টার পূর্বে রোযার নিয়্যত করলেই রোযা হয়ে যাবে। কিন্তু অন্য একটা মাসিক ম্যাগাজিনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, হাদীসে শরীফে আছে, যে ব্যক্তি রাত্র শেষ হওয়ার পূর্বেই রোযার নিয়্যত করল না, তারা রোযা হবে না। সঠিক মাসআলা জানতে চাই।


জবাবঃ


রাহমানী পয়গামে যা লেখা হয়েছে, তাই সঠিক। দ্বীপ্রহর এর পূর্বে আনুমানিক বেলা ১১টার পূর্বে নিয়্যত করলেই রামাযানের রোযা হয়ে যাবে। কেননা, বুখারী শরীফে আছে যে, রামাযান শরীফের রোযা ফরয হওয়ার পূর্বে যখন আশুরার রোযা ফরয ছিল, তখন একবার ২৯ তারিখে চাঁদ দেখা না যাওয়ায় মদীনার লোকেরা মুহাররমের ৯ তারিখে এক ব্যক্তিকে ঘোষণা করতে  বললেন যে, যারা খানা খেয়েছে তারা যেন বাকী দিন না খায়। আর যারা খায়নি তারা যেন রোযার নিয়্যত করে নেয়। কেননা আজ আশুরার দিন। উল্লেখ্য, উক্ত মাসিক ম্যাগাজিনে যে হাদীসটি পেশ করা হয়েছে, তা কাযা রোযা বা অনির্দিষ্ট মান্নতের রোযার সাথে সম্পৃক্ত। ফরয, নফল বা নির্দিষ্ট মান্নতের রোযার ব্যাপারে নয়।


[প্রমাণঃ ফাতাওয়া শামী ২:৩৭৭# ফাতাওয়া দারুল উলূম ৬:৩৪৪# বুখারী শরীফ ১:২৬৮# আবূ দাঊদ শরীফ ১:৩৩২]