elektronik sigara

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

প্রতিদিন আমল করার জন্য “দৈনন্দিন আমল ও দু‘আসমূহ” নামক একটি গুরত্বপূর্ণ কিতাব আপলোড করা হয়েছে।

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ঈসায়ী।

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেরিয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

বিভিন্ন মেলায় যাওয়া ও জিনিস খরিদ করা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরণের মেলা বসে থাকে। যেমন- বৈশাখী মেলা ও পৌষী মেলা ইত্যাদি। ঐসব মেলায় যাওয়া জায়িয হবে কি ? ওখান থেকে আসবাব পত্র কেনা জায়িয হবে কি-না ?

 


জবাবঃ


বর্তমানে আমাদের দেশে যে মেলা বসে থাকে, তা আমাদের জানা মতে বিভিন্ন ধরনের নোংরা, অশ্লীল ও অবৈধ কার্যকলাপের উপর ভিত্তি করেই হয়ে থাকে। মুসলমানদের মেলা হোক, কিংবা বিধর্মীদের মেলা হোক, বর্তমানে কোন মেলাতে অংশগ্রহণের কিংবা তথায় ক্রয়-বিক্রয় কোনটার জন্য উপস্থিত হওয়া জায়িয হবে না। কেননা, ঐ সমস্ত মেলাতে আপনার উপস্থিতি মেলার সৌন্দর্য ও জাঁকজমক বৃদ্ধির সহায়ক হবে। যা প্রকারান্তরে তাদের অশ্লীলতা ও অবৈধ কার্যকলাপের ব্যাপারে উৎসাহ যোগাবে। আল্লাহ পাক ইরশাদ করেনঃ “ভাল ও তাকওয়ার কাজে তোমরা সহায়তা করো, গুণাহ ও সীমা লংঘনের ব্যাপারে সহায়তা করো না।” [প্রমাণঃ সূরা মায়িদা, ২ # ফাতাওয়া রশীদিয়া, ২৪৯]


তদুপরি গুনাহ হওয়া সত্ত্বেও যদি কেউ উপস্থিত হয়ে কোন বস্তু সঠিক পদ্ধতিতে ক্রয় করে, তাহলে তার বেচা-কেনা শুদ্ধ হয়ে যাবে। [ফাতাওয়া রশীদিয়া, ৪৫৫]


সারকথা, এ সব মেলায় মুসলমানদের জন্য অংশগ্রহণ না করা এবং না যাওয়া নৈতিক ও ঈমানী কর্তব্য।