elektronik sigara

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

প্রতিদিন আমল করার জন্য “দৈনন্দিন আমল ও দু‘আসমূহ” নামক একটি গুরত্বপূর্ণ কিতাব আপলোড করা হয়েছে।

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২২শে শা‘বান, ১৪৪১ হিজরী, ১৭ই  এপ্রিল, ২০২০ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

রজব মাস শুরু হলেই প্রিয় নবী এই দু‘আ খুব বেশী করে পড়তেন: اَللّهُمَّ بَارِكْ لَنَا  فِيْ  رَجَبَ  وَشَعْبَانَ  وَبَلِّغْنَا رَمَضَانَ

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

পহেলা বৈশাখের কুসংস্কার

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

আজকাল অনেককে দেখা যায়-পহেলা বৈশাখীর নামে কাল বা বর্ষবরণ করে নিতে। যাতে করে তারা সুখে থাকতে পারে। এ ধারণা কি ঠিক ? ইসলাম এ ব্যাপারে কি বলে ?


জবাবঃ


পবিত্র কুরআনে সূরা আল-জাসিয়া ২৪ নং আয়াতে মহান আল্লাহ কাফির-মুশরিকদের আক্বীদা প্রসঙ্গে উল্লেখ করেছেন- “কাফির-মুশরিকরা বিশ্বাস করে যে, আমাদের পার্থিব জীবনই তো শেষ। আমরা মরি ও বাঁচি মহাকালেরই কারণে। আর মহাকালইতো আমাদের ধ্বংস করে।” কাফির-মুশরিকরা মহাকালের চক্রকেই সৃষ্টি জগত ও সমস্ত অবস্থার কারণ সাব্যস্ত করত। অথচ এগুলো সব প্রকৃতপক্ষে সর্বশক্তিমান আল্লাহর কুদরত ও ইচ্ছায় সম্পন্ন হয়ে থাকে। প্রাকৃতিক নিয়ম বলতে কোন কিছুর নিজস্ব অস্তিত্ব নেই। কারণ-প্রাকৃতিক নিয়ম বা প্রাকৃতিক আবর্তন বিবর্তন দুর্যোগ ইত্যাদি দ্বারা যা বুঝানো হয়, সবই আল্লাহ তা‘আলার নিয়ন্ত্রণে। সবই আল্লাহর ‍কুদরত এবং সবই আল্লাহর সৃষ্টি। এগুলোর নিজেদের ব্যাপারে কোন ক্ষমতা নেই। সুতরাং দীনের জ্ঞান শূন্য লোকেরা বিভিন্ন অভিনব পদ্ধতিতে যে কালকে বরণ করার প্রথা চালু করেছে, তা মারাত্মক ভ্রান্ত আক্বীদার বহিঃপ্রকাশ। যা আগের যামানার এবং কাফির-মুশরিকদের আক্বীদার সহিত সামঞ্জস্যশীল। এছাড়াও তা বর্তমান হিন্দু সম্প্রদায়ের সাথেও সংগতিপূর্ণ। তা নিঃসন্দেহে শিরক ও গুনাহর কাজ। প্রত্যেক মুসলমান এসব থেকে দূরে থাকা ঈমানী দায়িত্ব।