elektronik sigara

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেড়িয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

নামাযের কিরা’আতে ভুল

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

জনৈক ইমাম সাহেব নামাযের কিরা‘আতে পেশ এর স্থলে যের পড়লেন। যেমন-كَيْفَ فَعَلَ رَبُّكَ এর স্থলে পড়লেন كيف فعل ربك। এমতাবস্থায় পিছন থেকে শুদ্ধ করে বলে দেয়া হলে ইমাম সাহেবও শুদ্ধ করে পুরো আয়াতটি পড়ে নিলেন।

অতঃপর দ্বিতীয় রাক’আতেও এক সূরা থেকে অন্য সূরায়ে চলে গেলেন এবং মাঝখানে কোনরূপ বিরতি না ‍দিয়ে ধারাবাহিক ভাবে তিলাওয়াত করতে থাকলেন। নামাযে ভুলবশতঃ এরূপ অবস্থা হওয়ায় নামাযের বিশুদ্ধতা নিয়ে মুসল্লীরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এক পক্ষের ধারণা উল্লেখিত ভুলের দরুন নামাযের কোন ক্ষতি হয়নি; বরং নামায শুদ্ধ ও সহীহ্ হয়েছে। আর অপর পক্ষের ধারণা হচ্ছে উল্লেখিত ভুলের কারণে নামায সহীহ্ হয়নি বিধায় তারা পুনরায় নামায আদায় করেছে। কুরআন হাদীসের দৃষ্টিতে উপরোক্ত সমস্যার সঠিক সমাধান কি?

 


জবাবঃ


বর্ণনা অনুসারে জানা যায়, মুক্তাদীর নিকট থেকে ইমাম সাহেব লুকমা (ভুল বিশুদ্ধকরণ) গ্রহণ করে সহীহ্ কিরা‘আত পড়েছেন। সুতরাং উক্ত ভুলের দরুন কোন ক্ষতি হয়নি, তেমনিভাবে স্মরণ না আসায় অন্য সূরায় চলে গেলেও কোন দোষ নেই।


সুতরাং নামায পুনরায় পড়তে হবে না। আর যে দল বলেছে নামায হয়নি, তাদের কথা সঠিক নয়।[প্রমাণঃ ফাতাওয়া শামী ১:৬২২ # ইমদাদুল ফাতাওয়া ১:২৭৭]