elektronik sigara

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

প্রতিদিন আমল করার জন্য “দৈনন্দিন আমল ও দু‘আসমূহ” নামক একটি গুরত্বপূর্ণ কিতাব আপলোড করা হয়েছে।

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ঈসায়ী।

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেরিয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

নাভীর নিচে হাত বাঁধা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

নামাযে অনেকে নাভীর উপরে হাত বাঁধে, আবার অনেকে নাভীর নিচে বাঁধে । এখন আমার প্রশ্ন নাভীর নিচে হাত বাঁধার পক্ষে আপনাদের নিকট কোন কিতাবের দলীল আছে কি-না ? এবং সহীহ কোন হাদীসে তা আছে কি-না ?


জবাবঃ

নামাযের মধ্যে হাত নাভীর নিচে বাঁধার ব্যাপারে সহীহ হাদীস আছে।


(১) হযরত ওয়াইল ইবনে হুজর রা. বলেন:


«رَأَيْتُ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَضَعَ يَمِينَهُ عَلَى شِمَالِهِ فِي الصَّلَاةِ»


অর্থ: আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লামকে নামাযে ডান হাত বাম হাতের উপর রেখে নাভির নীচে রাখতে দেখেছি। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা:হা. ৩৯৫৯)


قَالَ الشَّيْخُ عَوَّامَةُ فِيْ تَحْقِيْقِ هٰذَا الْحَدِيْثِ: وَ هٰذَا إِسْنَادٌ صَحِيْحٌ، قَالَ الْإِمَامُ الْقَاسِمُ ابْنُ قُطْلُوبْغَا فِيْ كِتَابِهِ "التَّعْرِيْف وَ الْأَخْبَار بِتَخْرِيْجِ أَحَادِيْثِ الاِخْتِيَارِ" بَعْدَ مَا نَقَلَهُ سَنَدًا وَ مَتْنًا: وَ هٰذَا إِسْنَادٌ جَيِّدٌ، وَ قَالَ الْعَلَّامَةُ مُحَمَّدٌ عَابِدٌ السِّنْدِيُّ فِيْ طَوَالِعِ الْأَنْوَارِ عَلَى الدُّرِّ الْمُخْتَارِ بَعْدَ تَخْرِيْجِ هٰذَا الْحَدِيْثِ: وَ رِجَالُهُ كُلُّهُمْ ثِقَاتٌ وَ أَثْبَاتٌ. (مصنف ابن أبى شيبة: 3/320)


অর্থ: শাইখ আওয়ামা রহ. এই হাদীসের তাহকীকে বলেন, হাদীসটির সনদ সহীহ। ইমাম কাসেম ইবনে কুতলুবুগা রহ. স্বীয় গ্রন্থ ‘আত্ তা’রীফ ওয়াল আখবার’ এ উক্ত হাদীসটিভ ‘সনদ ও মতন’ উল্লেখ করে বলেন, সনদটি মজবুত ও শক্তিশালী। আল্লামা আবেদ সিন্ধী রহ. ‘ত্বওয়ালিউল আনওয়ার’ নামক গ্রন্থে এই হাদীসটি (সনদ ও মতনসহ) উল্লেখ করে বলেন ‘এই হাদীসের সনদের সকল রাবী গ্রহণযোগ্য, একজনও দুর্বল রাবী নেই’।


আল্লামা শাওকানী রহ. ‘নাইলুল আওতার’ গ্রন্থে প্রথমে হযরত ওয়াইল ইবনে হুজর রা.-এর সংক্ষিপ্ত রিওয়ায়াত ثُمَّ وَضَعَ الْيُمْنَى عَلَى الْيُسْرَى (ডান হাত বাম হাতের উপর রেখেছেন) উল্লেখ করার পর আহমাদ এবং আবূ দাউদের তাফসীলী রিওয়ায়াত


«ثُمَّ وَضَعَ يَدَهُ الْيُمْنٰى عَلٰى كَفِّهِ الْيُسْرٰى وَ الرُّسْغَ وَ السَّاعِدَ» (অতঃপর তিনি তার ডান হাত বাম হাতের তালুর পিঠ, কব্জি ও বাহুর উপর রাখলেন) উল্লেখ করার পর এর ব্যাখ্যায় বলেন:


وَالْمُرَادُ أَنَّهُ وَضَعَ يَدِهِ الْيُمْنَى عَلَى كَفِّ يَدِهِ الْيُسْرَى وَرُسْغَهَا وَسَاعِدَهَا. وَلَفْظُ الطَّبَرَانِيِّ «وَضَعَ يَدَهُ الْيُمْنَى عَلَى ظَهْرِ الْيُسْرَى فِي الصَّلَاةِ قَرِيبًا مِنْ الرُّسْغِ».


অর্থ: তিনি তার ডান হাত বাম হাতের তালুর পিঠ, কব্জি ও বাহুর উপর রেখেছেন। তাবারানীর বর্ণনায় বাক্যটি এরূপ: তিনি নামাযে তার ডান হাত বাম হাতের পিঠের উপর কব্জির কাছে রেখেছেন। (নাইলুল আওতার:২/১৮৮)


(২) হযরত আলী রা. বলেন:


إِنَّ مِنَ السُّنَّةِ فِيْ الصَّلٰوةِ: إ إِنَّ مِنَ السُّنَّةِ فِيْ الصَّلٰوةِ: إِنَّ مِنَ السُّنَّةِ فِيْ الصَّلٰوةِ وَضْعُ الْأَكُفِّ، عَلَى الْأَكُفِّ تَحْتَ السُّرَّةِ. (أحمد:1/110، أبو داود: فى رواية ابن الأعرابى وابن داسة:756،ذكره الشيخ عوامة فى نسخته المحقق لأبى داود، و الدارقطنى:1/285، ابن أبى شيبة:3966 و فيه عبد الرحمن بن إسحاق هو أبو شيبة الواسطى ضعيف، لكن يشهد له الحديث السابق)


অর্থ: নামাযে সুন্নাত হলো: তালু তালুর উপর রেখে নাভির নীচে রাখা। (মুসনাদে আহমাদ: ১১০,আবূ দাউদ: হা. নং ৭৫৬, দারাকুতনী: ১/২৮৫, মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা: হা. নং ৩৯৬৬ এই সনদে আবূ শাইবা আব্দুর রহমান ইবনে ইসহাক আল ওয়াসেতী রয়েছেন। যদিও তিনি দুর্বল, কিন্তু প্রথম হাদীসটি এর সমর্থন করছে, কাজেই ঐ দুর্বলতা দূর হয়ে গিয়েছে।)


(৩) হযরত আবূ হুরাইরা রা. বলেন:-


«أَخْذُ الْأَكُفِّ عَلَى الْأَكُفِّ فِي الصَّلَاةِ تَحْتَ السُّرَّةِ». (أبو داود:758 وفيه أيضاً عبدالرحمن المذكور)


অর্থ: নামাযে হাতের তালু দিয়ে অপর তালু ধরে নাভির নীচে রাখবে। (আবূ দাউদ:হা. নং ৭৫৮। এতেও পূর্বোক্ত আব্দুর রহমান রয়েছেন যার দুর্বলতা দূর হয়ে গেছে।)


(৪) হযরত হাজ্জাজ ইবনে হাসসান রহ. বলেন:-


سَمِعْتُ أَبَا مِجْلَزٍ، أَوْ سَأَلْتُهُ قَالَ: قُلْتُ: كَيْفَ يَصْنَعُ؟ قَالَ: «يَضَعُ بَاطِنَ كَفِّ يَمِينِهِ عَلَى ظَاهِرِ كَفِّ شِمَالِهِ وَيَجْعَلُهَا أَسْفَلَ مِنَ السُّرَّةِ» ( مصنف ابن أبى شيبة: 3963،وقال الماردينى فى الجوهر النقى:2/31 سنده جيد)


অর্থ: আমি আবূ মিজলায রহ.কে বলতে শুনেছি, অথবা হাজ্জাজ বলেন: আমি আবূ মিজলাযকে জিজ্ঞাসা করলাম যে, নামাযে কীভাবে হাত বাঁধবো? তিনি প্রত্যুত্তরে বললেন: ডান হাতের তালু বাম হাতের তালুর পিঠের উপর রেখে নাভির নীচে রাখবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা: হা. নং ৩৯৬৩, ইমাম মারদীনী রহ. স্বীয় কিতাব ‘জাওহাররুন নাকী’তে এই আসার সম্পর্কে বলেন: এর সনদ জায়্যিদ-২/৩১)


(৫) ইবরাহীম নাখাঈ রহ. বলেন:-


«يَضَعُ يَمِينَهُ عَلَى شِمَالِهِ فِي الصَّلَاةِ تَحْتَ السُّرَّةِ» (مصنف ابن أبى شيبة : 3960)


অর্থ: নামাযে ডান হাত বাম হাতের উপর রেখে নাভির নীচে বাঁধবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা: ৩৯৬৯, এর সনদটি হাসান)


(৬) আল্লামা ইবনুল মুনযির রহ. তার ‘আল-আওসাত’ গ্রন্থে লিখেছেন:


وَقَالَ إِسْحَاقُ: تَحْتَ السُّرَّةِ أَقْوَى فِي الْحَدِيثِ،وَأَقْرَبُ إِلَى التَّوَاضُعِ. (الأوسط : 3/243)


অর্থ: হযরত ইসহাক রহ. (যিনি ইমাম বুখারী রহ. এর উস্তাদ) তিনি বলেছেন: নাভির নীচে হাত বাঁধার হাদীস অধিক শক্তিশালী এবং বিনয়ের নিকটতর। (আল-আওসাত:৩/২৪৩)