elektronik sigara

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

প্রতিদিন আমল করার জন্য “দৈনন্দিন আমল ও দু‘আসমূহ” নামক একটি গুরত্বপূর্ণ কিতাব আপলোড করা হয়েছে।

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ঈসায়ী।

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেরিয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

তা’বীয ব্যবহার করা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

তা’বীয ব্যবহার করা শিরক কি-না? শরী‘আতের দৃষ্টিতে এর হুকুম কি?

 


জবাবঃ


একমাত্র আল্লাহ তা‘আলাই সমস্ত কিছু করতে পারেন। তিনি দান করেন এবং তিনিই রোগ থেকে মুক্তি দান করেন। অন্তরে এ বিশ্বাস রেখে শুধুমাত্র অসীলা স্বরূপ শরী‘আত সম্মত তা’বীয ব্যবহার করতে পারে। এতে কোন রকম শিরক হবে না। তা’বীয, ঝাড়-ফুঁক এইটা শুধু এ যামানায় নতুন নয়, বরং আমাদের প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া-সাল্লাম- এর যামানায় ছিল। তিনি ঝাড়-ফুঁক করেছেন। সাহাবাগণ থেকেও তা’বীয ব্যবহার প্রমাণিত আছে। তবে কেউ যদি তা’বীয সম্পর্কে এই ধারনা পোষন করে যে, তা’বীযের মধ্যে ক্ষমতা আছে। তা’বীয বিপদ-আপদ থেকে রক্ষা করতে পারে, তা’বীয ব্যবহার না করলে বা খুলে রাখলে বিরাট বিপদ হতে পারে, এ ধরণের বিশ্বাস নিয়ে তা’বীয ব্যবহার করা নিঃসন্দেহে শিরক হবে। ইলম বিহীন (অজ্ঞ) লোকেরা সাধারণতঃ এ ধরনের ভ্রান্ত বিশ্বাস নিয়ে তা’বীয ব্যবহার করে থাকে। এটাকে কঠোরভাবে নিষেধ করা চাই।


সহীহ আকীদার তা’লীম দিয়ে মুসলমানদের ঈমান-আকীদা রক্ষার যিম্মাদারী উলামায়ে কিরামদের উপর। আজকাল বেশ কিছু নামধারী আলেমগণ মুসলমানদের ঈমান-আকীদা যতটুকু অবশিষ্ট ছিল তাও নিজের দুনিয়াবী স্বার্থে বরবাদ করছে। এ জন্য সাধারণ মুসলমানদের জন্য হক্কানী উলামাদের সাথে জুড়ে থাকা ছাড়া তাদের ঈমান রক্ষার দ্বিতীয় কোন পথ নেই।


عن اسامت بن شريك قال قالوا يا رسول الله افنداوى قال نعم يا عباد الله تداووا فان الله لم يضع داء الا وضع له شفاء غير داء واحد الصرم .      (مشكوة-377/2)