elektronik sigara

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেড়িয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

গান শ্রবণ করা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

আমি জানতে আগ্রহী যে, শরী‘আতের দৃষ্টিতে গান বাদ্য শ্রবণ করা কতটুকু জায়িয ? অনেকে বলে থাকে বাদ্য ছাড়া গান শ্রবণ করা জায়িয আছে।

 


জবাবঃ


গান-বাজনা শরী‘আতের দৃষ্টিতে হারাম ও মহাপাপ। রাসুলে কারীম সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, কিয়ামত সংঘঠিত হওয়ার পূর্বে পাপকার্য ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাবে। নর্তকী এবং বাদ্যযন্ত্রের ব্যাপকতা এর অন্যতম। (তিরমিযী শরীফ) অন্য এক হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, আল্লাহ রাব্বুল ‘আলামীন আমাকে বাদ্যযন্ত্র ধ্বংস করার জন্য প্রেরণ করেছেন। [মুসনাদে আহমদ]


পবিত্র কুরআনে সূরায়ে লুকমান আয়াত নং ৬ এবং সূরায়ে বনী ইস্রাইল আয়াত নং ৬৪, উক্ত আয়াতদ্বয়ে গান এবং বাদ্যযন্ত্র বাজানো হারাম। যারা পাপ কাজে জড়িত হবে তাদের জন্য কঠোর শাস্তির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কাজেই প্রত্যেক মুসলমানদের জন্য এই মহাপাপ থেকে বিরত থাকা ফরয। যেহেতু গান গাওয়া এবং বাদ্যযন্ত্র বাজানো ইত্যাদি শরী‘আতের দৃষ্টিতে হারাম ও মহাপাপ সুতরাং গান শোনা জায়িয হওয়ার কোন প্রশ্নই উঠে না। অবশ্য যদি বিষয়বস্তু সম্পূর্ণ ইসলামী হয় এবং তার সাথে কোন বাদ্যযন্ত্র না থাকে এবং কোন পুরুষ তা পড়ে, যাকে গযল বলা হয় এটা জায়িয আছে।


 استماع الملاهي معصية والجلوس عليها فسق والتلذذ بها كفر.  (نيل الاوتار:8/100)


وقال رسول الله صلى الله تعالى عليه وسلم الغناء ينبت النفاق كما منبت الماء الزرع. (مشكاة المصابيح:411)


[প্রমাণঃ সূরা লোকমান, ৬ # রূহুল মাআনী, ১১ : ৬৭-৬৮ # লিসানুল আরব ৪ : ২-৪ # দুররে মুখতার, ৫ : ২৪৫ # নাইলুল আওতার, ৮ : ১০০ # মিশকাত, ৪১১]