elektronik sigara

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর সমস্ত কিতাব, বয়ান, প্রবন্ধ, মালফুযাত পেতে   ইসলামী যিন্দেগী  App টি সংগ্রহ করুন।

প্রতিদিন আমল করার জন্য “দৈনন্দিন আমল ও দু‘আসমূহ” নামক একটি গুরত্বপূর্ণ কিতাব আপলোড করা হয়েছে।

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ঈসায়ী।

সুখবর! সুখবর!! সুখবর!!! হযরতওয়ালা দা.বা. এর গুরত্বপূর্ণ ২ টি নতুন কিতাব বেরিয়েছে। “নবীজীর (সা.) নামায” এবং “খ্রিষ্টধর্ম কিছু জিজ্ঞাসা ও পর্যালোচনা”।  আজই সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

কুরবানী ওয়াজিব হওয়ার শর্তাবলী ও চামড়ার হুকুম

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

কুরবানী কার উপর ওয়াজিব, কতটুকু মাল থাকলে কুরবানী করতে হবে? কুরবানীর চামড়া নিজে ব্যবহার করেত পারবে কি-না?

 


জবাবঃ


কুরবানী স্বাধীন মুকিম মুসলমান যার নিকট কুরবানীর দিনে ৭ ১/২ তোলা স্বর্ণ বা ৫২ ১/২ তোলা রৌপ্য বা এর সমমূল্যের নগদ অর্থ অথবা ব্যবসার মাল কিংবা প্রয়োজন অতিরিক্ত সামানপত্র থাকে, তার উপর কুরবানী ওয়াজিব হবে। চাই তা পূর্ণ এক বৎসর স্থায়ী থাকুক, বা না থাকুক। এক কথায় যে পরিমাণ সম্পদের অধিকারী হলে ঈদুল ফিতরের দিনে ফিতরা ওয়াজিব হয়, সেই পরিমাণ সম্পদ কুরবানীর দিনে (অর্থাৎ ১০/১১/১২ ই যিলহজ্জ) কারো নিকটে কিংবা দু’বৎসর বয়সের গরু বা মহিষের সাত ভাগের অন্ততঃ এক ভাগ অংশে শরীক হয়ে কুরবানী করা ওয়াজিব। তবে গরু-মহিষে একাধিক অংশ নিলে বা একাই একটা কুরবানী করলে, কোন ক্ষতি নেই বরং ভাল। আর কুরবানীর চামড়া পাকা করে নিজে ব্যবহার করা যায়, বা অন্যকে হাদিয়া দেয়া যায়। কিন্তু, বিক্রয় করলে তার মূল্য গরীব-মিসকীনদেরকে দান করা ওয়াজিব।


কোন খালিস দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের গরীব তালিবে ইলমকে দান করলে, দানের সাথে সাথে ঈলমে দ্বীনের সহায়তার সাওয়াব পাওয়া যাবে। [হিদায়াঃ ১:২৩২]