elektronik sigara

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১শে জুমাদাল উলা, ১৪৪৪ হিজরী, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার (সকাল ৭-৮টা থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

ঈদগাহ মাঠের শরয়ী হুকুম

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

ঈদগাহ মাঠ হিফাযতের হুকুম কি? সর্বক্ষেত্রে জামে মসজিদের মতই? না কোন পার্থক্য রয়েছে? যেমন: (ক) মহিলারা মাসিক চলাকালীন অবস্থায় ঈদগাহ মাঠে প্রবেশ করতে পারবে কি-না? (খ) ঈদগাহ মাঠের উপর দিয়ে জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা বানানো যাবে কি-না? (গ) মৃত ব্যক্তির লাশ ঈদগাহ মাঠের ভিতরে রেখে জানাযার নামায পড়া যাবে কি-না? (ঘ) ঈদগাহে দুনিয়াবী কোন জনসভা, সামাজিক অনুষ্ঠান করা যাবে কি-না? জানতে ইচ্ছুক।


জবাবঃ


কোন কোন কিতাবে ঈদগাহ সম্পূর্ণ মসজিদের হুকুমে বলা হয়েছে। তবে নির্ভরযোগ্য মত অনুযায়ী ঈদগাহ কোন কোন দিক দিয়ে মসজিদের হুকুম। সুতরাং ঈদগাহকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা ও ঈদগাহের মর্যদার প্রতি বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখা একান্ত জরুরী। ঈদগাহের অবমাননা হয়, এমন কোন কাজ সেখানে করা যাবে না। ঈদগাহের উপর দিয়ে চলাচলের রাস্তা বানানো ঈদগাহের মর্যাদার পরিপন্থি কাজ। অনুরুপভাবে ঈদগাহে কোন মিছিল, মিটিং বা নির্বাচনী জনসভা অথবা প্রচলিত বিবাহ অনুষ্ঠান ইত্যাদি করা ঈদগাহের অবমাননার শামিল। এগুলো থেকে বেঁচে থাকা উচিত। তবে মসজিদে সুন্নাত তরীকায় বিবাহ কার্য সমাধা করার ফযীলত বর্ণিত হয়েছে। সুতরাং বিশেষ প্রয়োজনে তা ঈদগাহে করা যাবে। তেমনিভাবে ঈদগাহে ওয়ায মাহফিল করা যাবে। কিন্তু নিজের ব্যক্তিগত কোন কাজে ঈদগাহ ব্যবহার করা যাবে না।


একটি বিষয় বিশেষভাবে ঊল্লেখ্য যে, ঈদগাহ যেহেতু সম্পূর্ণরুপে মসজিদের হুকুমে নয়, সুতরাং হায়িয বা মাসিক চলাচালীন মহিলাদরে ঈদগাহে প্রবেশ করা বা সেখানে অবস্থান করা জায়িয। তবে যতদূর সম্ভব এরুপ না করাই উত্তম। আর ঈদগাহ মাঠের সীমার ভিতরে মৃত ব্যত্তির লাশ রেখে জানাযার নামায আদায় করতে কোন অসুবিধা নেই। (প্রমাণঃ তাতারখানিয়া ৫:৮৪৫# আল বাহরুর রায়িক ৫:২৪৮# কিফায়াতুল মুফতী ৭:১০৭# আহসানুল ফাতাওয়া ৬;৪২৮)