elektronik sigara

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া যাত্রাবাড়ী মাদরাসায় বার্ষিক দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী  ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ ঈসায়ী, শনিবার।

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

আমলে কাসীরের সংজ্ঞা

তারিখ : ১৪ - ফেব্রুয়ারী - ২০১৮  

জিজ্ঞাসাঃ

নামায ফাসিদ হওয়ার কারণ হিসেবে যে আমলে কাসীরের কথা বলা হয় সেই আমলে কাসীরের সংজ্ঞা ও পরিমাণ কি?


জবাবঃ


নামাযরত ব্যক্তির এমন কোন কর্ম- যা নামায পরিপন্থী তা দু’ভাগে বিভক্ত (ক) পরিমাণে সামান্য- যাকে শরী‘আতের পরিভাষায় ‘আমলে কালীল’ বলা হয়। (খ) পরিমাণে বেশী যাকে ‘আমলে কাসীর’ বলা হয়। নামাযের অভ্যন্তরের কোন কর্ম আমলে কাসীর বলে সাব্যস্ত হলে নামাযীর নামায সর্বসম্মতিক্রমে ভঙ্গ হয়ে যায়।


আমলে কাসীরের পরিমাণ নির্ণয়ের বেলায় ফিকাহবিদগণের মধ্যে মতভেদ পরিলক্ষিত হয়। সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য মতানুযায়ী আমলে কাসীর বলা হয় এরূপ কর্মকে, যে কর্মের কর্মরতকে নামাযের বাহির থেকে অবলোকনকারীর নিশ্চিত ধারণা জন্মে যে, সে নামাযরত অবস্থায় নেই। এ ধরনের কর্ম দ্বারা তার নামায নষ্ট হয়ে যাবে। আর তাকে নামাযরত বলে যদি ধারণা হয়, তাহলে একে আমলে কাসীর বলা হবে না, বরং আমলে কালীল বলা হবে। তাতে নামায নষ্ট হয় না। [প্রমাণঃ হিদায়া, ১:১৪১ # বাহরুর রায়িক, ২:১১-১২ # ফাতাওয়া আলমগীরী, ১:১০১ # বাদায়িউস সানায়ে, ১:২২১ # ফাতহুল কাদীর ১:৩৫১]


العمل الكثير يفسد الصلوة والقليل لا كذا في محيط السرخسي. اختلفوا في الفاصل بينهما على ثلاثة اقوال .... (والثالث) انه لو نظر اليه ناظرا من بعيد ان كان لا يشك انه في غير الصلاة فهو كثير مفسد وان شك فليس بمفسد وهذا هو الاصح هكذا في التبيين وهو الاحسن.  (الفتاوى الهندية:1/101)