elektronik sigara

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসায় দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১শে রবীউস সানী, ১৪৪৪ হিজরী, ১৮ই নভেম্বর, ২০২২ ঈসা‘য়ী, শুক্রবার (সকাল ৭-৮টা থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

ইনশাআল্লাহ জামি‘আ ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া যাত্রাবাড়ী মাদরাসায় বার্ষিক দাওয়াতুল হকের মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে আগামী  ৫ই নভেম্বর, ২০২২ ঈসায়ী, শনিবার।

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসা থেকে প্রকাশিত একাডেমিক ক্যালেন্ডার পেতে ক্লিক করুন

হযরতওয়ালা দা.বা. কর্তৃক সংকলিত চিরস্থায়ী ক্যালেন্ডার ডাউনলোড করতে চাইলে এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” এ ভিজিট করুন।

জামি‘আ রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসার বার্ষিক মাহফিল, জামি‘আ রাহমানিয়া মাদরাসা সাত মসজিদ প্রাঙ্গন মুহাম্মাদপুরে অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৯শে অক্টোবর, ২০২২ শনিবার (বাদ থেকে শুরু হবে ইনশাআল্লাহ)

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা এর লিখিত সকল কিতাব পাওয়ার জন্য এ্যাপের “সর্বশেষ সংবাদ” থেকে তথ্য সংগ্রহ করুন।

হযরতওয়ালা দা.বা. এর কিতাব অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.maktabatunnoor.com

হযরতওয়ালা মুফতী মনসূরুল হক সাহেব দা.বা. এর নিজস্ব ওয়েব সাইট www.darsemansoor.com এ ভিজিট করুন।

বালা মুসীবত ও বিপদ আপদে মানুষ ঈমান সম্পর্কীয় পর্যাপ্ত ইলম ও ইয়াকীন না থাকায় অনেক সময় ধৈর্যহীন হয়ে এমন কথা বলে ফেলে বা এমন কাজ করে বসে, যাতে তার ঈমান বিনষ্ট হয়ে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায় এবং পিছের যিন্দেগীর সকল ইবাদত বন্দেগী বরবাদ হয়ে যায় । এ সমস্যা থেকে বাঁচার লক্ষ্যে বক্ষমান পুস্তিকায় বিপদ আপদ ও বালা মুসীবতের ব্যাপারে কুরআন ও হাদীসে যে সকল সান্তনাবাণী ও পুরষ্কারের ঘোষণা করা হয়েছে তার থেকে সামান্য কিছু বর্ণনা তুলে ধরা হয়েছে । যাতে করে বিপদে সাত্ত্বনা লাভ ও ধৈর্য ধারণ সহজ হয় এবং দুঃখ কষ্টের ভেতরে আল্লাহ তা’আলা যে অসংখ্য সাওয়াব ও ফযীলত রেখেছেন, তা অনুধাবন করে সেটাকে যেন আমরা আল্লাহর বিশেষ এক ধরনের নিয়ামত মনে করতে পারি ।

আল্লাহ তা’আলা সমগ্র বিশ্বের মালিক; আমাদের জান-মাল, বিষয়-সম্পদ, পিতা-মাতা, স্ত্রী-সন্তান সব কিছুই আল্লাহ তা’আলার মালিকানা । আমরা যে মালিকানা দাবী করি তা ঠিক নয় । কারণ, আমাদের অস্থায়ী মালিকানাটুকুও জান্নাতের বিনিময়ে আমরা আল্লাহর নিকট বিক্রি করে দিয়েছি । আল্লাহ তা‘আলা তাঁর মালিকানার মধ্যে আমাদের মঙ্গলের জন্য যে কোন সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার রাখেন; তাঁর সিদ্ধান্তের ব্যাপারে আপত্তি করার বা প্রশ্ন তোলার কেউ কোন প্রকার অধিকার রাখে না । আল্লাহ তা’আলার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মনক্ষুন্ন হওয়া বা অভিযোগ করা কুফরি কাজ, এতে ঈমান নষ্ট হয়ে যেতে পারে । বান্দার দায়িত্ব এতটুকু যে, আল্লাহ তা’আলার সিদ্ধান্ত তার মনের অনুকূলে হলে সে আল্লাহর হামদ ও শোকর আদায় করবে । আর যদি আল্লাহর কোন সিদ্ধান্ত তার মনের বিরুদ্ধে হয় তাহলে সে আল্লাহর হামদ ও সবর করবে । সারকথা, মালিকানা যার সিদ্ধান্ত তার; এখানে নাক গলানোর কার কি অধিকার আছে?